সংবাদ শিরোনামঃ

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পদে একসঙ্গে স্বামী-স্ত্রীর পদোন্নতি…

২০১৯ সালে রাজধানীর খিলগাঁওয়ে একটি সুপারশপ থেকে দুধ চুরি করতে গিয়ে ধরা পড়ে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছিলেন এক বেকার বাবা। একপর্যায়ে প্রকৃত ঘটনা জানতে পেরে ওই বাবাকে বাঁচাতে এগিয়ে যান তৎকালীন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের খিলগাঁও জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম সোহাগ।ওই বছরের ১১ মে ঘটনাটি নিজের ফেসবুক আইডিতে তুলে ধরেন জাহিদুল ইসলাম। পরে সেই পোস্টটি ভাইরাল হয়। দেশজুড়ে সহানুভূতির মধ্যে ওই বাবাকে চাকরি দেয় স্বপ্ন কর্তৃপক্ষ। ঠিক তখন থেকেই আলোচিত পুলিশ অফিসার জাহিদুল ইসলাম সোহাগ।২০১৯ সালের ৪ নভেম্বর খিলগাঁও থেকে বদলি হয়ে যান মতিঝিল জোনে। সেখানেও তিনি কৃতিত্বের সঙ্গে দায়িত্বপালন করছেন। ২০১৯ সালে জাহিদুল ইসলাম বাংলাদেশ পুলিশের সর্বোচ্চ পদক পিপিএম সেবা পদক অর্জন করেন। তার সহধর্মিণীও একজন পুলিশ অফিসার। রোববার (২ মে) স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের উপ-সচিব ধনঞ্জয় কুমার দাস স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে পুলিশের ১০৫ জন সহকারী পুলিশ সুপার পদমর্যাদার কর্মকর্তাদেরকে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার হিসেবে পদোন্নতি পান। ওই তালিকায় একসঙ্গে পদোন্নতি পান জাহিদুল ইসলাম সোহাগ ও তার সহধর্মিণী শামীমা আক্তার সুমী।জাহিদুল ইসলাম সোহাগ বর্তমানে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের মতিঝিল জোনের সহকারী কমিশনার (এসি) হিসেবে দায়িত্বপালন করছেন, অন্যদিকে তার সহধর্মিণী শামীমা আক্তার সুমী সহকারী কমিশনার (এসি) হিসেবে স্পেশাল ব্রাঞ্চে (এসবি) দায়িত্বপালন করছেন। দু’জনেই ৩৩তম বিসিএসের মাধ্যমে নিয়োগ পান। বরগুনার ছেলে জাহিদ আর মাদারীপুরের মেয়ে সুমী। জাহিদুল-সুমী দম্পতির স্বপ্ন ছিল পুলিশে চাকরি করার। এজন্য করেছেন কঠোর অধ্যবসায়, কঠোর পরিশ্রম। শেষপর্যন্ত স্বপ্নকে ছুঁতে পারেন। তবে তাদের এই সফলতায় ছিল কঠিনতর চ্যালেঞ্জ। আর সেসব চ্যালেঞ্জকে জয় করেই আজ তারা সফল মানুষ, সফল দম্পতি।তাদের দু’জনের প্রথম দেখা হয়েছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। ৩৩তম বিসিএসের ফল প্রকাশের পর। এর কয়েকদিন পর শুরু হয় পেশাগত প্রশিক্ষণ। কঠোর নিয়মের মধ্যে থাকা সেই প্রশিক্ষণে সামান্যই দেখা হত তাদের। এভাবেই একটা সময় তাদের মধ্যে গড়ে ওঠে বন্ধুত্ব। তারপর প্রেম-ভালোবাসা।সবশেষ পরিবারের সিদ্ধান্তে বসেন বিয়ের পিঁড়িতে। দিনটি ছিল ২০১৫ সালের ১৭ জুলাই। ছোট থেকেই বাবার স্বপ্ন পূরণে দৃঢ় সংকল্পবদ্ধ ছিলেন সুমী। ভাই-বোনদের মধ্যে সুমী ছিলেন সবার ছোট। সেই সুমীই পূরণ করেছেন বাবার স্বপ্ন। কারণ বাবা চাইতেন তার তিন সন্তানের মধ্যে কেউ একজন পুলিশে আসবে। ক্যাম্পাসের প্রিয়মুখ হিসেবে পরিচিত জাহিদ দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগ থেকে সম্পন্ন করেছেন স্নাতক ও স্নাতকোত্তর। বিভাগে প্রথম শ্রেণিতে দ্বিতীয় হওয়ার সুবাদে খুব সহজেই পেয়ে যান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক পদে নিয়োগ। সেখানে শিক্ষকতা করার সময়ই সফল হন বিসিএস-পুলিশ ক্যাডারে। জাহিদুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ছোট থেকেই ইচ্ছা ছিল পুলিশ হওয়ার। আমার স্বপ্নের সঙ্গে যদি বাস্তবে কিছু পেয়ে থাকি সেটা হলো বিসিএস-পুলিশ ক্যাডারে সফল হওয়ার বিষয়টি।জীবনে মাত্র একদিন বেকার থেকেছেন জাহিদ। ২০১৪ সালের ৫ আগস্ট তিনি অব্যাহতি দেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক পদ থেকে। তার ঠিক একদিন পর ৭ আগস্ট যোগ দেন বাংলাদেশ পুলিশে। ট্রেনিংয়ে ১৪৭ জন কর্মকর্তাকে পেছনে ফেলে অর্জন করেন দ্বিতীয় স্থান। বুঝতে শেখার পর থেকেই জাহিদের স্বপ্ন ছিল পুলিশের চাকরি করার। আর এজন্য করেছেন কঠোর অধ্যবসায়। কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের মতো পুলিশের একটি গুরুত্বপূর্ণ শাখায় কাজ করতে পেরে গর্বিত এ কর্মকর্তা। চাকরির শুরুতে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে যোগদান করেন জাহিদ। প্রথমে ডিএমপির প্রটেকশন ডিভিশন, পরবর্তীতে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট, তারপরে খিলগাঁও জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার এবং সর্বশেষ মতিঝিল জোনের সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*