সংবাদ শিরোনামঃ

গাজীপুরের কাপাসিয়া পারভিনের মৃত্যু না আত্মহত্যা???

ভ্রাম্যমাণ প্রতিনিধি মুনছুর শেখ

গাজীপুর জেলার কাপাসিয়া থানাধীন উরুন গ্রামে এক মর্মান্তিক ঘটনা ঘটে গত ৪/৪/২০২১/ইং রোজ রবিবার বাদী আবুল হোসেনের মেয়ে বিবাদী কাউসার এর সাথে প্রেমে আবদ্ধ হয়ে প্রায় ১৮ মাস আগে পালিয়ে কোট ম্যারিজ করে বিয়ে করেন বাবা বিবাহ মেনে না নেওয়ায় তারা দুজনে আলাদা সংসার করতে থাকেন পারভিনের মা দেশের বাহিরে থাকেন মায়ের সাথে যোগাযোগ করে বাবা কে কন্ট্রোল করেন শেষ পর্যন্ত বাবা মেনে নিতে বাধ্য হয় মেয়ের সুখের জন্য। মেয়ের শ্বশুরবাড়ি অবস্থা খুব খারাপ দেখে মেয়েকে ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা নগদে সৌদি আরব যাওয়ার জন্য দেন মেয়ের জামাই কে পরে দেখা যায় বন্ধুদের নিয়ে বিভিন্ন প্রকার নেশার সাথে জরিয়ে পরে প্রতিনিয়ত গভীর রাতে বাসায় ফিরে স্ত্রী কে মারধর করে,

বিভিন্ন সময় হত্যার হুমকি প্রদান করা হতো বলে জানান। এক পর্যায়ে স্বামীর অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে বাবাকে সমস্ত ঘটনা খুলে বলে। বাবা আবুল হোসেন মেয়েকে নিয়ে আসে তার বাড়িতে দীর্ঘ দেড় মাস রাখার পর হঠাৎ আবার মেয়ের মায়ের সাথে মেয়ের জামাই কাওসার কথা বলে এই সুযোগে মেয়ের বাবা আবুল হোসেন বাড়িতে না থাকায় খালি বাড়ি পেয়ে গত ৩এপ্রিল মেয়েকে একপর্যায়ে জোরপূর্বক তুলে নিয়ে যায় কাউসারের বাড়িতে। তারপরের দিন বড় ভাই আব্দুল্লা পারভীনের অসুস্থতার কথা বলে পারভিন এর বাবা কে তার বাড়িতে আসতে বলেন পারভিনের বাবা আবুল হোসেন বাড়িতে প্রবেশ করে দেখে তার মেয়ের লাশ উঠানে পড়ে আছে।

তারপর আব্দুল্লাহর খোঁজ খবর পাওয়া যায় নাই এবং কাউসারের পরিবারেও কাউকে ও খুঁজে পাওয়া যায় নাই।তারপর পারভিনের লাশ পুলিশের তত্বাবধানে পোস মেডাম থেকে শুরু করে দাফন-কাফন পর্যন্ত কাউসার বা পরিবারের কাউকে খুঁজে পাওয়া যায়নি বারবার সংবাদ দেওয়ার পরেও তারা লাশ দাফনে আসে নাই। এই বিষয়ে এলাকাবাসীর বক্তব্য এটা কোন আত্মহত্যা নয় এ কে হত্যা করা হয়েছে আমরা এর আগেও অনেক ফাঁসির লাশ দেখেছি কিন্তু পারভীনের লাশের মধ্যে ফাঁসি নিয়ে মরার কোন আলামত আমরা দেখতে পাই নাই এলাকাবাসীর স্পষ্ট বক্তব্য ভেসে উঠে আত্মহত্যা নয় হত্যা না হয় তারা পালিয়ে বেড়াবে কেন। এলাকাবাসীর কয়েকজন বলেন প্রকাশ্যে কাউসার এর চাচা মোহাম্মদ হাফিজ উদ্দিন বলে বেড়াচ্ছে এ সমস্ত মামলা খেয়ে এসে এসছি আর কিছু হবে না।

মেয়ের বাবা আবুল হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমার মেয়ে কোনভাবেই আত্মহত্যা করতে পারে না আমার মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে আমি গরীব অসহায় বলে মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও কোন বিচার পাচ্ছিনা স্থানীয় মেম্বার চেয়ারম্যান ও প্রশাসনের কাছে গিয়েও কোন সহোযুগীতা পাচ্ছিনা, আমি আমার মেয়ে হত্যার সুষ্ঠু বিচার চাই।এই বিষয়ে পারভীনের স্বামী কাউসার এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন আমি কিছু জানিনা কেমনে কি হয়েছে সকাল আনুমানিক ১০.৩০ মিনিটে আমি (কাওসার) বাসায় থেকে বেরিয়ে যাই। তার পর আনুমানিক ১৫ মিনিট পরে বাসায় যাই পরেই আমি মৃত্যুর সংবাদ পাই। এ বিষয়ে কাপাসিয়া থানার অফিসার হত্যা মামলার আইও পুলিশ কর্মকর্তা চুন্নু শেখের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন প্রাথমিক তদন্তে ধারণা করা হচ্ছে আত্মহত্যা। বাকিটা বেরিয়ে আসবে পোসম্যাডাম এর রিপোর্ট হাতে পেলে মামলা ব্যাপারে জানতে চাইলে বলেন মামলার প্রক্রিয়া দিন।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*