সংবাদ শিরোনামঃ

মানিকছড়িতে পাট দিবসে র্যালী ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

 মানিকছড়ি প্রতিনিধি:– “সোনালী আশেঁর সোনার দেশ, পাটপণ্যের বাংলাদেশ” এই স্লোগানকে সামনে রেখে ৬ মার্চ জাতীয় পাট দিবস উপলক্ষে দেশব্যাপী পাটর্যালী ও আলোচনার অংশ হিসেবে মানিকছড়ি উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে সকাল ১০ ঘটিকার সময় উপজেলা প্রশাসন চত্তর থেকে র্যালী বের হয়ে উপজেলার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার উপজেলা চত্তরে এসে শেষ হয়। র্যালী শেষে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবাইয়া আফরোজ(ভার:প্রাপ্ত) এর সভাপতিত্ব উপজেলা সম্মেলন কক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া র্যালী ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান ম্রাগ্য মারমা। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান রাহেলা আক্তার, উপজেলা শিক্ষা অফিসার এনায়েত উল্লাহ, মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা কামরুল আলম, সহকারী প্রোগ্রামার (আইসিটি) মো. শালিক আহমেদ, একাডেমিক সুপার ভাইজার রেহেনা মোস্তফা, সহ উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা বৃন্দ। এছাড়াও মানিকছড়ি উপজেলার বিভিন্ন বাজার পরিচালনা কমিটি সভাপতি-সম্পাদক সহ অন্যান্য সদস্য বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উক্ত আলোচনা সভায় মানিকছড়ি বাজার কমিটির সভাপতি বাবু রুপেশ পাল বলেন, দেশের বিভিন্ন স্তান থেকে চালসহ বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্য সামগ্রী পাটের জিনিসের ব্যবহার খুবই দূর্লভ। চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জ সহ দেশের অনেক স্থানে পাটের দ্রব্যাদি বা খাদ্য বোঝাই বস্তার ব্যবহার খুজে পেতে আমরা ব্যর্থ হই। ফলে এ অঞ্চলের চাহিদা মেটাতে আমরা বাধ্য হয়েই পলিব্যাগ বা প্লাস্টিক জাতীয় বস্তায় মালামাল নিয়ে আসতে হয়। তাই যদি দেশের সর্বত্র পাটের ব্যবহার নিশ্চিত করা যায় তাহলে পাটজাত দ্রব্যাদি পেতে সুবিধা হবে। তারপরও আমাদের সর্বাত্মক চেষ্টা থাকবে যাতে পাটের ব্যবহার নিশ্চত করা যায়। প্রধান অতিথির বক্তব্যে ম্রাগ্য মারমা বলেন, পাটশিল্পের সাথে বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য ও সংস্কৃতি জড়িত। দেশীয় সংস্কৃতি ও কৃষ্টির সাথে মানানসই পাট ও পাটজাত পণ্য দেশে যেমন গুরুত্বের দাবিদার, তেমনি বিশ্ববাজারেও এটি এখন অনন্য পরিবেশ বান্ধব পণ্য হিসেবে সমাদৃত। এদিকে সরকারও পাটখাতের উন্নয়নের জন্য সর্বাত্মক উদ্যোগ নিয়েছে। আমাদেরকে পাটের সুদিন ফিরিয়ে আনতে পাট পণ্যের ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। তবেই আমরা পরিবেশ বান্ধব সুন্দর একটি দেশ গড়ে তুলতে পারব। সভাপতির বক্তব্যে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুবাইয়া আফরোজ(ভাঃপ্রা) বলেন, বিশ্বব্যাপী পাটের গুরুত্ব রয়েছে। তাছাড়া পাটকে বাংলাদেশের সোনালী আশঁ বলা হয়। কিন্তু বর্তমানে তা হারিয়ে যাচ্ছে। এছাড়া পরিবেশ বান্ধব দেশ গড়তে হলে পাট জাত জিনিসের ব্যবহারের প্রতি অধিক গুরুত্ব দিতে হবে। বর্তমানে পলিথিন বা প্লাস্টিক জাতীয় জিনিসের ব্যবহার বেশি দেখা যায়। অথচ এগুলো ব্যবহারের ফলে যেমন, বর্ষা মৌসুমে নদী-নালা, ড্রেন সহ পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থার ব্যঘাত সৃষ্টি হয় এবং এগুলো পচনশীল নয়। তেমনি ফসলি জমি চাষাবাদেও সমস্যা হয়। ভালো ফসল ও পাটজাত দ্রব্যের ব্যবহার নিশ্চিত করতে পারলেই পরিবেশ বান্ধব দেশ গড়া সম্ভব হবে।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*