সংবাদ শিরোনামঃ

সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ মোকাবেলায় বৃহত্তর সুন্নী ঐক্যের বিকল্প নেই এম.এ.মান্নান

af 2

আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির উদ্যোগে বৃহত্তর কুমিল্লা (কুমিল্লা-চাদঁপুর-বি-বাড়ীয়া,ফেনী, নোয়াখালী, লক্ষীপুর)’র সুন্নি ওলামা-পীর মাশায়েখ, বুদ্ধিজীবি ও বিশিষ্ট জনদের সাথে মতবিনিময় ও পরামর্শ সভা আজ বেলা ২.০০টায় কুমিল্লা টাউন হলে অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন- চট্টগ্রাম আল আমিন বারিয়া দরবার শরীফের পীর সাহেব মাওলানা সৈয়দ বদরুদ্দোজা বারী (মা:জি:আ:)। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- প্রখ্যাত আলেমে দ্বীন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্টের মাননীয় চেয়ারম্যান আল্লামা এম.এ মান্নান। প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- আহলে সুন্নাত ওয়াল জামা’আত কেন্দ্রীয় সমন্বয় কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী জননেতা আল্লামা এম.এ মতিন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন- আলহাজ্ব অধ্যক্ষ অলি আহমদ। প্রধান অতিথি এম এ মান্নান বলেন- সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ আজ সারা বিশ্বের জন্য মারাত্মক হুমকী হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর মূল কারণ তরুণ ও যুব সমাজের সাথে ইসলামের প্রকৃত শিক্ষার অভাব, দূর্বল ঈমান ও তাকওয়ার অভাব এবং চারিত্রক অধপতন। আপোষকামী অবক্ষয়মুখী নেতৃত্বের কারণে যুব সমাজ আজ দিশেহারা। জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে জাতীয় ঐক্যের প্রয়োজনীয়তার কথা উল্লেখ করে জঙ্গীবাদ ইস্যুতে দলাদলী বা দোষারোপের রাজনীতি পরিহার করে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান। প্রধান বক্তার বক্তব্যে আল্লামা এম. এ মতিন, জঙ্গীবাদ আমাদের জাতীয় সমস্যা বটে কিন্তু জঙ্গীবাদ দমনের নামে আমেরিকা বা ভারতের অযাচিত সাহায্য আমরা চাই না। কোরআন-সুন্নাহ বিরোধী অপতৎপরতা মূলোৎপাটন না করে জঙ্গীবাদ দমন সম্ভব নয়। দেশের শিক্ষানীতি প্রণয়নসহ যাবতীয় নীতি নির্ধারণে ওলামা সমাজের অংশ গ্রহনের প্রয়োজনীয়তাকে মূল্য দিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি আরও বলেন- টিভি টকশোতে জঙ্গীবাদ আলোচনায় ওলামাদের না নিয়ে নাস্তিক্যবাদী বুদ্ধিজীবিদের নেওয়ায় লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশী হচ্ছে বলে মন্তব্য করেন। তিনি ১২নভেম্বর ঢাকায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী ময়দানে জঙ্গিবাদ বিরোধী সুন্নী মহা সমাবেশে তরিকত পন্থী সুন্নী জনতাকে যোগদানের আহবান জানান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- পীরে তরিকত আল্লামা ছৈয়দ মছিহুদ্দৌলা, পীরে তরিকত গাজী এম. এ ওয়াহিদ সাবুরী, পীরে তরিকত আলহাজ্ব মাওলানা আবু সুফিয়ান আল-আবেদী, পীরজাদা মাওলানা গোলামুর রহমান আশরাফ শাহ, কুমিল্লা জেলা পরিষদ প্রশাসক বীরমুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব ওমর ফারুক, পীরে তরিকত মাওলানা হারুনুর রশিদ, পীরে তরিকত মাওলানা আবদুল বারী জেহাদী, অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ আবদুল মতিন, অধ্যক্ষ ড. মাওলানা মাহবুবুর রহামন, অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ আলী হোছাইন, অধ্যক্ষ মাওলানা আবু জাফর মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন, ড. আবু হোসেন, মুফতি মাও: মহিউদ্দিন লতিফি, আলহাজ্ব আলমগীর খান আল-মাইজভান্ডারী।

About Asgor Ali Manik

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*