সংবাদ শিরোনামঃ

“প্রাইমারি সহকারি শিক্ষক নিয়োগ “প্যানেল নিয়োগ ২০১৮” নিয়োগের দাবিতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে হরিপুর উপজেলার ঠাকুরগাঁও জেলার জসীমের খোলা চিঠি

নুর মোহাম্মদ,(ঠাকুরগাঁও) প্রতিনিধিঃ

প্রাথমিক প্যানেল চাকরি প্রত্যাশী মোঃজসীম উদ্দীন প্রাথমিক সহকারি শিক্ষক নিয়োগ প্যানেল প্রত্যাশী প্রাথমিকের ২০১৮ এর প্যানেল প্রত্যাশীদের সারা দেশে থেকে প্রায় ২৪ লক্ষ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ৫৫ হাজার লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়। প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মহোদয়ের মতে প্রাথমিকে ভাইভায় অংশগ্রহণ করলেই ১৪ থেকে ১৫ নম্বর পেয়ে পাশ করে। এ পরীক্ষা চার-ধাপে সম্পন্ন করে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর। পরীক্ষার পর অনেকটাই দ্রুত ফলাফল প্রকাশ করে ডিপিই। সেখানে ভাইভার জন্য ডাকা হয়৷ ৫৫ হাজারেরও বেশি প্রার্থীকে। সারাদেশে ১ লক্ষ ৯ শত ৬৬ জন শিক্ষার চাহিদা প্রদান শিক্ষা অধিদপ্তর হতে। এবার ৫৫ হাজার থেকে বাদ পড়া শিক্ষকেরা প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন করেছেন৷ প্যানেলের মাধ্যমে তাদের নিয়োগ দেয়ার জন্য। এ রকম একটি মন্তব্য শিক্ষকদের ফেসবুক গ্রুপে ও বিভিন্ন পত্র পত্রিকাসহ অন-লাইন মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে। বর্তমানে প্রাথমিক শিক্ষক সংকট এর সংখ্যা প্রায় ৬৩ হাজারেরও বেশি। অধিকাংশ পরীক্ষার্থীরাই ১৪ থেকে ১৫ টি সরকারি চাকুরির ভাইভায় অংশ-গ্রহণ করার পরেও কোন চাকুরি না পেয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। সেই সাথে অধিকাংশ দের বয়স শেষ হয়ে গেছে। পাঠকদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বরাবরে লিখিত পত্রটি হুবহু তুলে ধরা হলো- তারিখ:৩০/০৬/২০২০খ্রী. আসসালামু আলাইকুম, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা জাতীয় ও আর্ন্তজাতিক করোনা মহামারীর সংকটময় মুহূর্তে প্রথমেই আপনার সু-স্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করছি, সেই সাথে মুজিব শত-বর্ষের শুভেচ্ছা জানাচ্ছি। গভীর শ্রদ্ধা এবং বিনম্রতার সাথে সু-মহান আল্লাহর নিকট আপনার সরকারের সফলতাসহ আপনার শারীরিক সুস্থতা ও আপনার দীর্ঘ নেক হায়াত কামনা করে বুকের শত বেদনায় অশ্রুসিক্তে আপনাকে দেওয়া আমার খোলা চিঠিতে লিখতে বসলাম । বাংলাদেশের প্রথম রাষ্ট্রপতি, হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা এবং গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা,৩৭ হাজার পরিবারের সশ্রদ্ধ সালাম নিবেন, আসসালামু আলাইকুম। আপনার সফল নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হয়েছে। আপনার সঠিক, বিচক্ষণ এবং সাহসী নেতৃত্বে দেশের বিভিন্ন সমস্যার সমাধান হয়েছে এবং হচ্ছে। আপনি বাংলার শ্রেষ্ঠ বাঙ্গালির সন্তান, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের স্থপতি জাতির জনক এর সু-যোগ্য কন্যা, আপনি বিশ্ব মানবতার জননী হিসেবে আজ আখ্যায়িত। প্রায় বারো লাখ রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দিয়েছেন। আপনি আমাদের অহংকার ও গৌরব। স্বপ্ন ভেঙে যখন চুরমার, প্রতিটি মুহূর্ত বেঁচে থাকা যখন কঠিন সেই মুহূর্তে ভালোবাসা ও আবেগের সর্বোচ্চ আসন থেকে প্রাণের আকুতি নিবেদন করি। আপনার মুখের বাণীই আমাদের একমাত্র আশা, বেঁচে থাকার উপায়। হে মানবতার মা, আপনিই তো বলেছেন কোটি বাঙালির অস্তিত্বের স্বীকৃতির মহানায়ক, অবিসংবাদিত নেতা বঙ্গবন্ধুর শততম জন্ম-বার্ষিকীতে কেউ বেকার থাকবে না। মাগো, আমি নিম্ন মধ্যবিত্ত কৃষক পরিবারে বেড়ে ওঠা একটি সাধারণ ছেলে। আমার বাবার স্বপ্ন ছিলো আমাকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করে একজন সৎ ও আদর্শবান এবং দেশ ও জাতি গঠনের কারিগর হিসেবে গড়ে তুলবেন। আজ আমি উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়েছি বটে কিন্তু বাবার স্বপ্ন পূরণ করতে পারিনি। উচ্চশিক্ষা অর্জনের পর বেকারত্বের বোঝা নিয়ে কেবল এটাই মনে হয় ‘জন্মই যেন আমার আজন্ম পাপ।’ হে মানস কন্যা, আপনার পিতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি, বাঙালি জাতির জনক, বাঙালির ঐতিহ্য, স্বাধীনতার ঘোষক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান রেকর্ড সংখ্যক মানুষকে দেশ স্বাধীনের পরে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি দিতে ১৯৭৩ সালের ১ জুলাই হতে ১৯৭৫ সালের জুলাই পর্যন্ত মাত্র ৩ বছরে ৩৬ হাজার ১৬৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় জাতীয়করণ করে ১ লাখ ৫৫ হাজার ২৩ জন শিক্ষকের চাকরি সরকারিকরণ করেন। সুতরাং আমরাও চাই আপনি তার সুযোগ্য কন্যা হিসেবে মুজিব বর্ষের উপহার স্বরূপ আমাদের বেকারত্বের অভিশাপ থেকে মুক্তি দিন। আপনি হয়তো জানেন যে, প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম খুবই ধীর গতি সম্পন্ন এবং মামলা জটিলতার কারণে দীর্ঘ কয়েকবছর নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ বন্ধ থাকে। তৎসময়ে উচ্চশিক্ষা ব্যবস্থায় পর্যাপ্ত সেশনজট থাকে এবং কয়েক বছর পরে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হওয়ায় আমাদের প্রায় সংখ্যাগরিষ্ঠ চাকরিপ্রার্থীর বয়স শেষ। অনেকেই আর সরকারি চাকুরির জন্য আবেদন করতে পারবে না এবং তাদের স্বপ্ন পূরণ হবে না। শিক্ষিত হয়েও সমাজের বোঝা হয়ে তাদের বেঁচে থাকতে হবে। হে মাননীয় দেশনেত্রী, ২০১৮ সালের প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ১২ হাজার শিক্ষক নিয়োগের অনুকূলে ২৪ লাখ চাকরিপ্রার্থী আবেদন করে। এর মধ্যে লিখিত পরীক্ষায় প্রায় ৫৫ হাজারের বেশী উত্তীর্ণ হয়ে মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণকারী মধ্যে অধিদপ্তর থেকে ১৮১৪৭ জনকে চূড়ান্তভাবে সুপারিশে নির্বাচিত করে এবং তাদেরকে নিয়োগ দেয়। এই ১৮১৪৭ জন চূড়ান্তভাবে নির্বাচিত প্রার্থীর মধ্যে ৬১ টি জেলাতেই অনেকেই এর মধ্যে উচ্চ-পর্যায়ের চাকরিতে যোগদান করার কারণে অনেক পদ শূন্য রয়ে গেছে। কিছুদিন আগেও বিভিন্ন পত্র-পত্রিকার মাধ্যমে জানতে পেরেছি যে, প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের ডিসেম্বর ২০১৯ পর্যন্ত ২৮,৮৩২ এবং বর্তমানে প্রায় ৬৩,০০০ প্রাথমিক সহকারী শিক্ষকের শূন্য পদ রয়েছে৷ যা প্রতিনিয়ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। বাংলাদেশের রেকর্ড করা ইতিহাস ২০১৮ সালেই কেবল আমরা ২৪ লক্ষ প্রার্থীর সাথে প্রতিযোগিতা করে মাত্র ৫৫ হাজার প্রার্থী লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছি, যা শতকরা ২.৩%। হে মাতা, যখন ২৪ লক্ষ প্রার্থীর সাথে লড়াই করে টিকে থেকেও চূড়ান্তভাবে অযোগ্য বলে বিবেচিত হই তখন সমাজ আমাদেরকে হেয় প্রতিপন্ন চোখে দেখে। তাই বাকি ৩৭ হাজার প্যানেল প্রত্যাশীদের প্যানেলের মাধ্যমে শিক্ষক নিয়োগ করে বেকারত্বের অভিশাপ থেকে আমাদের মুক্তি দিন। উল্লেখ্য যে সম্প্রতি প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মহাপরিচালক মহোদয় বলেছেন৷ প্রাথমিকের মৌখিক পরীক্ষায় কোনো ফেল নেই, উপস্থিত হলে ১৪/১৫ পাওয় যায়। তার মানে আমরা যারা প্যানেল প্রত্যাশী সবাই লিখিত এবং মৌখিক পরীক্ষায় পাশ এবং চাকরি পাওয়ার যোগ্য। হে বাবার আদর্শ কন্যা, ইতোমধ্যে করোনা-ভাইরাসের কারণে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতাধীন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের জন্য এখন সংসদ টিভির মাধ্যমে রেকর্ড করা ক্লাস সম্প্রচার করা হচ্ছে৷ এই শিক্ষার্থীদের জন্য কোনো অন-লাইন ক্লাস সিস্টেম চালু নেই। সংসদ টিভির রেকর্ডকৃত ক্লাস গ্রামে অধ্যয়নরত অনেক শিক্ষার্থীরাই দেখতে পারছে না কারণ তাদের প্রায় অনেকের বাড়িতে টিভি নাই। তাদের এই সময়ে পড়াশোনায় বিশাল ঘাটতি প্রতি নিয়ত বিপর্যয়ে পড়ছে। মাগো, আমরা ‘প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ২০১৮’ এর সুপারিশ বঞ্চিত প্রায় ৩৭ হাজার প্রার্থীর প্রত্যেকেই যে করুণ ও বিষাদময় জীবন যাপন করছি তা শোনা মাত্রই আপনার কোমল হৃদয় কেঁপে উঠবে। আপনার নয়ন অশ্রুজলে সিক্ত হবে, আমরা কতটা ভাগ্য নিপীড়িত শিক্ষিত মেধাবী যোগ্য সন্তান। আপনার অসামান্য নেতৃত্বগুণ, দেশপ্রেম, ত্যাগ ও তিতিক্ষার এই স্বপ্নের দেশ গড়তে প্রতিটি পদক্ষেপে আমরা অংশ নিতে চাই। আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস আপনি আপনার প্রায় ৩৭ হাজার সন্তানের পরিবারের আর্তনাদ বিশেষ বিবেচনায় রাখবেন। ‘মা’ আপনি দয়া করে আমাদের এই প্রায় ৩৭ হাজার বেকার সন্তান, বাবার কাঁধে বোঝা, সমাজের চোখে বিষাক্ত এক প্রাণী হয়ে বেঁচে থাকা থেকে মুক্তি দেবেন, আপনি আমাদের সম্মানের সাথে, দু’মুঠো খাবারের যোগান দিয়ে বেঁচে থাকার অবলম্বন করে দিবেন। মা মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষ্যে আপনি আমাদের ৬১টি জেলার প্রতিটি ঘরে একজন করে সরকারি চাকরি দিয়ে, জাতির পিতার সোনার বাংলা গড়ার সুযোগ করে দিন। ‘উন্নয়নের বাতি ঘরে’ লাখো বাতি জ্বালিয়ে মুজিব শত বর্ষকে মহিমান্বিত করার সুযোগ দিন। হে বঙ্গমাতা, আমার বিশ্বাস ৩৭ হাজার প্যানেল প্রত্যাশী পরিবার বর্গকে রক্ষার্থে ও বিশ্বব্যাপী নোবেল করোনা ভাইরাসের ক্ষতি পুষিয়ে নেবার জন্য প্রাইমারি নিয়োগ ২০১৮ সালের “প্রাইমারি প্যানেল ২০১৮” নিয়োগ বাস্তবায়নের জন্য দ্রুত বিবেচনা করে ঘোষণা দেবেন এ আশায় দেশপ্রেমিক সাংবাদিক ভাইদের সহযোগিতায় আমার এই খোলা চিঠি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার দৃষ্টি গোছর হবে ইনশাআল্লাহ । ———— নিবেদক———— ২০১৮ সালের প্যানেল প্রত্যাশীর পক্ষে মো.জসীম উদ্দীন হরিপুর,ঠাকুরগাঁও জেলা।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*