সংবাদ শিরোনামঃ

জীবন দিয়ে হলেও খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব বললেন মেয়র প্রার্থী ইশরাক

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য জীবন দিতে প্রস্তুত আছেন জানিয়ে দলটির দক্ষিণের মনোনীত মেয়র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন বলেছেন, শুধু ঢাকা নয় পুরো দেশে আজ গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সেই জোয়ার ধানের শীষের জোয়ার। আগামী পহেলা ফেব্রুয়ারি জনগণ অবশ্যই ভোটকেন্দ্রে যাবেন। আমরা যে গণতন্ত্র এবং নিজেদের অধিকার রক্ষার আন্দোলনে আছি, সেই অধিকার রক্ষার আন্দোলনের জন্য প্রথমেই ধানের শীষে ভোট দিবো। এরপর বাংলাদেশের পথপ্রদর্শক বেগম খালেদা জিয়াকে অবশ্যই মুক্ত করব। প্রয়োজনে রক্ত দেব, জীবন দেব, তবুও বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব ইনশাআল্লাহ। রোববার (২৬ জানুয়ারি) বেলা সাড়ে এগারোটায় রাজধানীর মতিঝিলের আলীকো গেট ও সোনালী ব্যাংকের সামনে থেকে ১৬তম দিনের প্রচারণা শুরুর আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

ইশরাক হোসেন বলেন, আমি আজকে যেখানে প্রচারণা চালাতে এসেছি এই এলাকায় আমার জন্ম ও বেড়ে ওঠা। এটা একটা দেশের বাণিজ্যিক এলাকা। শুধু এই এলাকায় নয় সারা দেশটাকে তিলে তিলে ধ্বংস করেছে গত ১৩ বছর ধরে। দেশের অর্থনৈতিক খাতকে ধ্বংস করেছে। এখানে রয়েছে শেয়ার মার্কেট, শেয়ার মার্কেটে মানুষ সর্বহারা হয়ে দিনের পর দিন আন্দোলন করছে এবং আত্মহত্যার মত ঘটনাও ঘটেছে। আমাদের সামনে রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক বাংলাদেশ ব্যাংকের ভল্ট থেকে সোনা চুরি হয়ে গেছে। একটা দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে সোনা চুরি হয়ে যায় কত বড় চোর, ডাকাত হলে এটা সম্ভব।

তিনি বলেন, আজকে সরকারি ব্যাংকগুলোর অর্থ সরকারি দলের উচ্চপদস্থ লোকদের সহায়তায় লুট করা হয়েছে। এই শাপলা চত্বরে আলেমদের নিষ্ঠুরভাবে হত্যা করা হয়েছে। মানুষ আর কত স্তব্ধ হয়ে থাকবে? মানুষ জেগে উঠেছে। এ সরকারের সময় ঘনিয়ে এসেছে। দেশের মানুষ মুক্তিযুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছে। আমরা কোন তাবেদারী মানবো না, কারো কোন জমিদারি মানবো না। কারো দখলদারিত্ব মানবো না, এই দেশটা কারো পরিবারের নয়। এটার মালিক জনগণ। এই দেশ জনগণেরই।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ইশরাক হোসেন তাঁর বক্তব্যে তার যোগ্যতা নিজেই প্রমাণ করেছেন বলে আমি বিশ্বাস করি। ইশরাকের বাবা সাদেক হোসেন খোকা এবং আমি মির্জা আব্বাস ঢাকা শহরের সাবেক মেয়র ছিলাম আমি বিশ্বাস করি ইশরাক হোসেন তার বাবা এবং চাচার যেই অভিজ্ঞতা সাহস কাজে লাগিয়ে আপনাদের পাশে থাকবে এটা আমি বিশ্বাস করি।

ইশরাক যেই বক্তব্য দিল আমি বিশ্বাস করি ঢাকা মহানগরীতে এমন কোন প্রার্থী দাঁড়ায় নি যে তার সামনে এসে কঘা বলতে পারবে। এটা আমার গর্ব না এটা আমার অহংকার না এটা হচ্ছে বাস্তবতা। এই মতিঝিলে দাড়িয়ে বাহির থেকে কেউ এসে তেমন ভাবে চেনাতে পারবে না। সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইশরাক হোসেন যদি মেয়র হয় তাহলে ঢাকা শহরে নয়নের মণি হয়ে দাড়াবে বলে আমি বিশ্বাস করি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেন, দেশের জনগণ পরিবর্তন চায় তারা এই অত্যাচারী গণতন্ত্র হত্যাকারী নিপীড়নকারী ভোট চোর এবং ব্যাংক লুট শেয়ারবাজার লুট সরকারকে আরও শক্তিশালী করতে চায়না।

বিএনপি নেতা-কর্মীসহ সাধারণ জনগণ ভোট দেবে না ভোটের দিন ভোট কেন্দ্র পাহারা দেবে ইনশাআল্লাহ। যাতে করে কোন ভোট চোর কোন ভোট ডাকাত জনগণের আমানত নষ্ট করতে না পারে। দোয়া করি আল্লাহ যেন ইশরাককে ঢাকা দক্ষিণ সিটির জনগণের সেবা করার সুযোগ দান।

এর আগে আজ সকাল থেকে মতিঝিলের শাপলা চত্তর এলাকায় এসে ঝরো হন বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতা কর্মীরা। এসময় তারা বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও ধানের শীষে ভোট চেয়ে স্লোগান দেন।

প্রচারণায় আরো অংশ নিয়েছেন স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, যুগ্ম মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, যুবদলের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, মহিলা দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হেলেন জেরিন খানসহ বিপুল সংখ্যক নেতা ও কর্মী সমর্থক।

এদিন পর্যায়ক্রমে সাধারণ বীমা, রূপালী ব্যাংক, বিসিআইসি, বিএডিসি, অগ্রণী ব্যাংক, পূবালী ব্যাংক, শিল্প ভবন, কৃষি ব্যাংক, খাদ্য শিল্প ভবন, পূর্বানী হোটেল, বিজিএমসি, বিমান অফিস, জনতা ব্যাংক হয়ে দৈনিক বাংলা মোড়ে প্রচারণা ও গণসংযোগ করবেন ইশরাক। বিকাল তিনটায় বৃটিশ হাই কমিশনের কুটনীতিক প্রতিনিধিদল ইশরাক হোসেনের সাথে তার গোপীবাগের বাসভবনে সাক্ষাত করবেন। সন্ধ্যা সাতটায় বরিশালবাসীর সঙ্গে গোপিবাগের নিজ বাসায় মত বিনিময় সভা করবেন বিএনপির এই প্রার্থী।

এদিকে দুপুর দুইটায় অবিভক্ত ঢাকার সর্বশেষ মেয়র বীর মুক্তিযাদ্ধা মরহুম সাদেক হোসেন খোকার স্ত্রী, ঢাকা দক্ষিণে বিএনপির মেয়র প্রার্থী ইশরাক হোসেনের মা ইসমত আরা বেলা ২ টায় তার গোপীবাগের বাসভবন থেকে ছেলের জন্য নির্বাচনী গণসংযোগে বের হবেন। তিনি মতিঝিল থানার ৮ নং ও ওয়ারী থানার ৩৯ নং ওয়ার্ডে গণসংযোগ করবেন।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*