সংবাদ শিরোনামঃ

ইরান সঙ্কট নিরসনে সৌদিকে আলোচনায় বসার আহ্বান

মধ্যপ্রাচ্যের দুই প্রতিপক্ষের বিবাদমান সম্পর্কের বরফ এবার বুঝি গলতে শুরু করবে। দীর্ঘদিনের আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বী সৌদি আরবকে আলোচনার টেবিলে বসার আমন্ত্রণ জানিয়েছে ইরান। ইরানের প্রেসিডেন্ট হাসান রুহানির চিফ অব স্টাফ মাহমুদ ভায়েজি বুধবার সঙ্কট সমাধানে সৌদি আরবকে আলোচনায় বসার এই আহ্বান জানান।

ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের ইরানের রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ সংস্থা ইরনার বরাত দিয়ে করা প্রতিবেদন অনুযায়ী রুহানির চিফ অব স্টাফ ভায়েজি বলেন, ‘ইরান ও তার প্রতিবেশী সৌদি আরবের মধ্যে সম্পর্ক তেহরান আর ওয়াশিংটনের সম্পর্কের মতো হওয়া উচিত নয়। নিজেদের সমস্যা সমাধানে রিয়াদ ও তেহরানের যৌথভাবে কাজ করা উচিত।’

দশকের পর দশক ধরে সৌদি আরব ও ইরানের সম্পর্ক চরম বৈরীতাপূর্ণ। সিরিয়া থেকে ইয়েমেন, মধ্যপ্রাচ্যের সব দেশে আঞ্চলিক ক্ষমতাধর এই দুই দেশ ছায়াযুদ্ধে লিপ্ত। সম্প্রতি মার্কিন ড্রোন হামলায় ইরানের শীর্ষ কমান্ডার নিহত হওয়ার পর সেই সম্পর্কের তিক্ততা আরও বেড়েছে। আর এরমধ্যেই ইরানে পক্ষ থেকে এমন আমন্ত্রণ পেল রিয়াদ।

সৌদি আরব ও ইরান দীর্ঘদিনের প্রতিপক্ষ। সোজা বাংলায়, তারা একে অপরের ‘পুরনো শত্রু’। মধ্যপ্রাচ্যের সাম্প্রতিক উত্তেজনার পর এই দুই দেশের শত্রুতা এখন ভয়ানক রূপ নিয়েছে। কেউ কারও ছায়া পর্যন্ত দেখতে চায় না। এছাড়া ২০১৬ সালের জানুয়ারিতে তেহরানের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছেদ করেছে রিয়াদ।

প্রসঙ্গত, সৌদি আরব সুন্নি মুসলিমপ্রধান দেশ। অন্যদিকে ইরান শিয়া মুসলিমপ্রধান দেশ। ধর্মীয় মতাদর্শ নিয়ে শুরু থেকেই উভয় দেশের মধ্যে একটা বিরোধ বিদ্যমান। এছাড়া আরও একটি বড় ব্যাপার হলো, মধ্যপ্রাচ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ মিত্র সৌদি আরব। অপরদিকে ওই অঞ্চলে ইরান হলো যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় শত্রু।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*