খাদ্যমন্ত্রীর জামাইয়ের শরীরে আঘাতে চিহ্ন পায়নি পুলিশ

খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের বড় মেয়ের জামাই রাজন কর্মকারের (৪২) রহস্যজনক মৃত্যুর পর তার শরীরে প্রাথমিক সুরহতালে আঘাতের কোন চিহ্ন পায়নি পুলিশ। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন শেরে বাংলা নগর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মোহাম্মদ আবুল কালাম আজাদ।

তিনি জানান, ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রোববার (১৭ মার্চ) ভোরে ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসা থেকে রাজনের শ্যালিকা রাজনকে স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এর কিছুক্ষণ পর রাজনের স্ত্রী কৃষ্ণা কাবেরী হাসপাতালে আসেন। তবে কি কারণে ঠিক তার মৃত্যু হয়েছে তা নিশ্চিত করতে পারেননি চিকিৎসকরা।

রাজনের স্বজনদের দাবি, তাকে হত্যা করা হয়েছে। এদিকে তার সহকর্মীরা রাজনের ময়নাতদন্ত দাবি করে মৃত্যুর কারণ পরিষ্কার করার দাবি জানিয়েছেন। এ ঘটনায় রাজনের স্বজনরা থানায় মামলা করতে গেলে মামলা নেয়া হয়নি বলে অভিযোগ করেছেন তারা।

রাজন কর্মকার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ডেন্টাল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। রাজনের স্ত্রী-ও বিএসএমএমইউ’র সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক।

জানা গেছে, গত কয়েক বছর ধরে পারিবারিক কলহ চলছিল তাদের। বছর খানেক আগে কৃষ্ণার দ্বারা মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত রাজন মাস খানেক ঢাকার পপুলার হাসপাতাল, সিরাজুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও বিএসএমএমইউ’র আইসিইউতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। তারপর তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে নিয়মিত কাজ যেতেন।

রাজনের সহকর্মী বিএসএমএমইউয়ের মেডিকেল অফিসার ডা. ওমর ফারুক বলেন, রাজন হত্যার বিচার চাই। আমার জানা মতে, রাজনের কোনো শারীরিক অসুস্থ্যতা ছিল না। আমরা জেনেছি, আগে থেকেই তার পারিবারিক কলহ ছিল। আমরা মরদেহের ময়নাতদন্ত চাই।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*