সংবাদ শিরোনামঃ

মাটিরাঙ্গায় নিজস্ব বাসভবনে অপরিকল্পিত রাবার কারখানার ফলে শ্বাসকষ্ট সহ মারাত্মক রোগে আক্রান্ত হচ্ছে শিশুরা

খাগড়াছড়ি জেলা প্রতিনিধি: বাংলাদেশে প্রতি বছর যতো মানুষের মৃত্যু হয় তার ২৮ শতাংশই মারা যায় পরিবেশ দূষণ জনিত অসুখবিসুখের কারণে। কিন্তু সারা বিশ্বে এধরনের মৃত্যুর গড় মাত্র ১৬ শতাংশ। এমনি হুমকির মাঝে খাগড়াছড়ি জেলা মাটিরাঙ্গা উপজেলা সদরে ভূঁইয়া পাড়া পৌর ৮ নং ওয়ার্ডে দীর্ঘ দিন যাবত ধরে গড়ে ওঠেছে নিজস্ব বাসায় অপরিকল্পিত ভাবে রাবার কলকারখানা। এর বিষাক্ত গ্যাসের প্রভাবে ঐ এলাকা জোড়ে শিশুদের শ্বাসকষ্ট সহ গর্ভবতী মায়েরা নানা জটিল রোগে আক্রান্ত হচ্ছে। এলাকাবাসীর সূত্র মতে যানাযায়, স্থানীয় ব্যাবসায়ী মোঃ তৌফিকুল ইসলাম দীর্ঘ ৪ বছর যাবত “আরাফাত ভবন” নামে তার নিজস্ব বাসভবনেই গড়ে তোলেছেন এই অপরিকল্পিত রাবার কারখানার। কারখানাটির বিষাক্ত ধোঁয়া ও তীব্র গ্যাসে তৈরি হচ্ছে বায়ূ দূষণ। সম্প্রতি তার প্রতিবেশী ঐ এলাকায় শিশু শাহনাজ (১০) পিতা মোঃ নাসির চৌধুরী ও শিশু মিনহাজ ( ২) পিতা মোঃ আইয়ুব এই বিষাক্ত গ্যাসের প্রভাবে শ্বাসকষ্ট সহ বিভিন্ন জটিল রোগে আক্রান্ত হয়ে পরেছে। একাধিক বার ভর্তি হতে হয়েছে মেডিকেলে। পরিবেশ বিশেষজ্ঞদের মতে, এই বায়ুদূষণের ফলে শিক্ষার্থীদের বুদ্ধিমত্তা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, অনেকের মাঝে মানসিক সমস্যা দেখা দিতে পারে। বায়ু দূষণের ফলে গর্ভবতী মহিলাদের শারীরির সমস্যা গর্ভপাত ও মৃত্য শিশু প্রসবের ঝুঁকি অনেক বেড়ে যেতে পারে। গর্ভের শিশুর স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরি হবার আশংকা থাকে বেশি। এই বিষাক্ত ধোঁয়া ও গ্যাসের প্রভাবে শ্বাসকষ্ট, চোখ, নাক, গলা, নিউমোনিয়া সহ ফুসফুসের নানা ধরনের মারাত্মক রোগ আক্রমণ করতে পারে। দীর্ঘ দিন যাবত এই বায়ুদূষণের মধ্যে থাকলে ফুসফুস ক্যান্সার এবং লিভার নষ্ট হয়ে যেতে পারে। এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, কারখানা মালিক তৌফিকুল ইসলাম কে দীর্ঘ দিন যাবত এই সমস্যার কথা জানিয়ে আসেও কোনো কথাই আমলে নিচ্ছেন না তিনি। তার এই একঘেয়েমি পেশী জোরে গড়ে ওঠা রাবার কারখানার বিষাক্ত ধোঁয়া ও গ্যাসের প্রভাবে পাশ্ববর্তী দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ভূঁইয়া পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মাটিরাঙ্গা দারুচছুন্নাহ মাদ্রাসা হাজারো শিক্ষার্থীর বুদ্ধিমত্তা বিকাশ ক্ষতিগ্রস্ত সহ স্নায়ুর ক্ষতি হচ্ছে। হুমকির সম্মুখীন এলাকাবাসীর সকল শিশু, পুরুষ, মহিলা, বৃদ্ধরা। প্রসাশনের প্রতি উদ্দেশ্য করে এলাকাবাসীরা বলেন, সুস্থ পরিবেশ ও নাগরিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে অতি দ্রুত ঘটনাস্থল থেকে তৌফিকুল ইসলামের অপরিকল্পিত রাবার কারখানারটি বন্ধ করে অন্যত্রে সরিয়ে নিয়ে যাবার জন্য জরুরী যথাযথ ব্যবস্থা সুনিশ্চিত করে এই মহামারী পরিবেশ দূষণ থেকে রক্ষা করে জনগণকে সুন্দর একটি পরিবেশ উপহার দেয়ার জন্য।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*