সংবাদ শিরোনামঃ

ভোটে কুমিল্লার আটটি আসনে লড়াইয়ের সম্ভা

 আব্দুর রহিম বাবলু,কুমিল্লা: আগামীকাল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। কুমিল্লার ১১টি আসনে মাঠে সরব রয়েছে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা। তবে কুমিল্লার কয়েকটি আসনে তেমন সরব নেই ধানের শীষের প্রার্থীরা। তাদের অভিযোগ ক্ষমতাসীনদের হামলা মামলার কারণে তারা মাঠে নামতে পারছেন না। এদিকে সুষ্ঠু নির্বাচন হলে জেলার আটটি আসনে নৌকা ও ধানের শীষের প্রার্থীদেও মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। এদিকে কুমিল্লা জেলার ১৭টি উপজেলার ১১টি আসনে আওয়ামী লীগ, বিএনপি ও স্বতন্ত্রসহ জোট-মহাজোটের ৮৪ জন প্রার্থী নির্বাচন করছেন। নির্বাচনী মাঠের খোঁজ-খবর নিয়ে জানা যায়, কুমিল্লা-১ (দাউদকান্দি-মেঘনা) আসনে নির্বাচন করছেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী সুবিদ আলী ভুইয়া। এখানে লড়াই হবে দুই প্রার্থীর মধ্যে। কুমিল্লা-২(হোমনা-তিতাস) আসনে নির্বাচন করছেন বিএনপি’র স্থায়ী কমিটির সদস্য ড.খন্দকার মোশাররফ হোসেন ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সেলিমা আহমাদ মেরী। এখানেও লড়াই হবে। কুমিল্লা-৩ (মুরাদনগর) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইউসুফ আবদুল্লাহ হারুন ও বিএনপির প্রার্থী কে এম মুজিবুল হক। এখানে তুমুল লড়াই হবে দুই প্রার্থীর মধ্যে। কুমিল্লা-৪(দেবিদ্বার) আসনে এখনও মাঠে নামেননি জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি) এর আবদুল মালেক রতন। এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী রাজী মো. ফখরুল। এখানে আওয়ামী লীগ প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন। এদিকে কুমিল্লা-৫(বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আবদুল মতিন খসরু এমপি। বিএনপির প্রার্থী অধ্যাপক ইউনুস। শেষ দিকে ইউনুসের সাথে বিএনপি নেতা শওকত মাহমুদ মাঠে নামায় ভোট লড়াই জমে উঠেছে। কুমিল্লা-৬ (সদর,সিটি কর্পোরেশন) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার। বিএনপির প্রার্থী আমিন উর রশিদ ইয়াছিন। এখানে দুই প্রার্থীর মধ্যে লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। কুমিল্লা-৭(চান্দিনা) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী অধ্যাপক আলী আশরাফ এমপি। এলডিপির প্রার্থী দলের মহাসচিব ড.রেদোয়ান আহমেদ। এখানে দুই প্রার্থীর মধ্যে ভালো লড়াই হবে। কুমিল্লা-৮(বরুড়া) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী নাছিমুল আলম চৌধুরী নজরুল। বিএনপির প্রার্থী জাকারিয়া তাহের সুমন। এখানেও দুইজনের মধ্যে ভালো লড়াই হবে। কুমিল্লা-৯(লাকসাম-মনোহরগঞ্জ) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী তাজুল ইসলাম। বিএনপির প্রার্থী কর্নেল (অবঃ) এম আনোয়ারুল আজিম প্রতিপক্ষের হামলা-মামলার কারণে মাঠে নামতে পারছেন না বলে অভিযোগ করছেন। তবে সুষ্ঠু ভোট হলে এখানেও ভালো প্রতিদ্বন্দ্বিতা হবে। কুমিল্লা -১০ (সদর দক্ষিণ-লালমাই ও নাঙ্গলকোট) আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আ হ ম মুস্তফা কামাল। বিএনপির প্রার্থী মনিরুল হক চৌধুরী রয়েছেন কারাগারে রয়েছেন। বাবার পক্ষে তার মেয়ে ড.চৌধুরী সায়মা ফেরদৌস প্রচারণা চালাচ্ছেন। বিএনপি নেতা আবদুল গফুর ভুইয়া ও মোবাশ্বের আলম ভুইয়াও কারাগারে। এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন। কুমিল্লা-১১ (চৌদ্দগ্রাম) আসনে এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মজিবুল হক মুজিব। তার প্রতিদ্বন্দ্বী জামায়াত নেতা সৈয়দ আবদুল্লাহ মোহাম্মদ তাহেরকে এখনও মাঠে দেখা যায়নি। এখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এগিয়ে রয়েছেন। বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ডা.মোসলেহ উদ্দিন আহমেদ বলেন,মানুষ তার পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে চায়। সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজনে নির্বাচন কমিশন ও প্রশাসনকে আরো আন্তরিক হতে হবে। কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক মিয়া বলেন, ধানের শীষের প্রার্থীরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। তবে কিছু স্থানে হামলা মামলার কারণে তারা বাধাগ্রস্থ হচ্ছে। কুমিল্লা উত্তর জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি অ্যাড.নিজামুল হক বলেন, আওয়ামী লীগ কাউকে প্রচারণায় বাধা দিচ্ছে না। বিভিন্ন জায়গা তাদের নিজেদের মধ্যে কোন্দল রয়েছে।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*