সংবাদ শিরোনামঃ

৫ বছর পেরিয়ে গেলেও উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি মহেশখালীর জনপথে – রয়েছে জনমনে ক্ষোভ।

ফুয়াদ মোহাম্মদ সবুজ, সংবাদদাতা:

কক্সবাজার থেকে মহেশখালী অথবা বদরখালী থেকে মহেশখালী নয়তোবা বদরখালী থেকে গোরকঘাটা যেদিক থেকেই আসুন না কেন জনপথের দুর্ভোগ আপনাকে পোহাতে হবেই। ৫ বছর পেরিয়ে গেলেও কক্সবাজারের সংসদীয় এই আসনটিতে লাগেনি কোন উন্নয়নের ছোঁয়া তাই প্রচন্ড ক্ষুব্ধতা প্রকাশ করছেন এই জনপথের সাধারন পথচারী চালকগন, দেখা যায় বদরখালী থেকে গোরকঘাটার এই সড়কটির কোন একটি অংশেও ঠিক নেই পিচ রয়েছে বড় বর সব গর্ত, প্রায় ৫ বছরের অধিক সময় হয়ে গেলেও উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি এই সড়কটিতে। যার ফলে উন্নয়নের সুফল থেকে বঞ্চিত এই রাস্তায় চলাচল করা গ্রামবাসী।  ফলে এই রাস্তা দিয়ে যাতায়াত করা পথচারীরা পড়েছে দুর্ভোগে। বিশেষ অনুসন্ধানে খবর পাওয়া যায়, এমতাবস্থায় এই সড়কের পথচারী জনগন সরকার ও সরকারের বিগত বছরে দায়িত্বে থাকা মহেশখালী-কুতুবদিয়া (২-আসন, সাংসদ) জন প্রতিনিধির প্রতি ক্ষোভ ও আস্থাহীন মনোভাব প্রকাশ করছেন। এই বিষয়ে এই পথে চলাচল করে এমন এক ব্যাক্তির নিকট জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি বুঝতে পারছি না কেন আমাদের এই দুর্ভোগে চলাচল করতে হচ্ছে। টিভিতে দেখি আমাদের সরকার রাস্তার কাজের জন্য কোটি কোটি টাকা বাজেট দিচ্ছেন। আমাদের এই রাস্তায় কি উন্নয়ন স্পর্শ করেনি? তিনি সরকারের প্রতি আক্ষেপ করে বলেন, এলাকার মানুষ দিন দিন এই সরকারের কর্ম পরিকল্পনার প্রতি আস্থাহীন মনোভাব প্রকাশ করছেন। এদিকে এক সিনজি ড্রাইভারকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, রাস্তার যে অবস্থা আমরা গাড়ি নিয়ন্ত্রণ রাখতে অনেক কষ্ট হয়। যে কোন সময় দুর্ঘটনা গঠতে পারে, প্রায় রাস্তা ভাঙ্গা যা চলার অনুপযোগী। রাস্তাটি দীর্ঘদিন এই অবস্থায় থাকলেও কোন উন্নতি দেখিনি। তিনি দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, যানেন এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে অনেক গর্ববতী মহিলা ও মুমূর্ষু রোগীকে কি যন্ত্রণা সহ্য করতে হয়েছে। যা আমরা ড্রাইভারা স্বনয়নে দেখেছি। কোন একজন জরুরী রোগীকে এই রাস্তা দিয়ে নিয়ে যাও হলে সময় মত পৌচাতে পারিনা হাসপাতালে, শুধুমাত্র সড়কের এমন অবস্থার কারনে। তিনি আরো ক্ষোভ নিয়ে বলেন ভোট বিহীন এই সংসদীয় এমপি সাহেব কি করেছে মহেশখালীর জন্য?

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*