আশুলিয়ায় মাত্র ১০ হাজার টাকায় জরিনা হত্যাকাণ্ড!!

আজম সরকার,সাভারঃ

আশুলিয়ায় বৃদ্ধ বাবাকে বাস থেকে ফেলে দিয়ে মেয়ে জরিনা খাতুনকে (৪৫) হত্যার ঘটনায় পি বি আই এর তদন্তে চাঞ্চল্যকর তথ্য বেরিয়ে এসেছে। নিহত জরিনা বেগমের মেয়ের জামাই নূর ইসলামের অনুরোধে মাত্র ১০ হাজার টাকার বিনিময়ে শ্বাশুড়ি জরিনা হত্যাকাণ্ড বাস্তবায়ন করেন স্বপন। তদন্ত সংশ্লিষ্টদের মতে, বিয়ের ঘটক স্বপনই ছিলেন এ হত্যাকাণ্ডেরও ‘ঘটক’।হত্যাকাণ্ডের শিকার জরিনা খাতুনের মেয়ে রোজিনা খাতুনের সঙ্গে পাঁচ বছর আগে নূর ইসলামের বিয়ের ঘটক ছিলেন স্বপন নামে এক ব্যক্তি। শনিবার দুপুরে ধানমন্ডিতে পিবিআইয়ের সদর দফতরে সংবাদ সম্মেলনের এসব তথ্য জানান পিবিআই প্রধান ডিআইজি বনজ কুমার মজুমদার। হয়।এ ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার বাদী ছিলেন নিহত জরিনার মেয়ে রোজিনা খাতুনের জামাই নূর ইসলাম। অথচ বাদী নিজেই ছিলেন হত্যাকাণ্ডে পরিকল্পনাকারীদের একজন। গত ১৬ নভেম্বর (শুক্রবার) দিনগত রাতে অভিযান চালিয়ে ঘটনার পরিকল্পনাকারী জামাই নূর ইসলাম (২৯) ও তার মা আমেনা বেগম (৪৮) এবং ঘটক স্বপনকে গ্রেফতার করে তদন্তকারী সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। এই কর্মকর্তা বলেন, ঘটক স্বপনের মধ্যস্থতায় ৫ বছর আগে রোজিনা ও নূর ইসলামের বিয়ে হয়। এরপর থেকে তাদের মধ্যে প্রায়ই দাম্পত্য কলহ লেগেই থাকতো। আর এই বিবাদ মেটাতে প্রায়ই রোজিনার মা জরিনা আশুলিয়ায় জামাই নূর ইসলামের বাড়ি আসতো। সম্প্রতি তাদের দাম্পত্য কলহ প্রকট আকার ধারণ করে এবং এজন্য শ্বাশুড়ি জরিনাকে দায়ী করে। নূর ইসলাম ও তার মা আমেনা বেগম ঘটক স্বপনের সঙ্গে বিষয়টি আলোচনা করে। তারা পরিকল্পনা করে শ্বাশুড়ি জরিনাকে এমন শিক্ষা দিতে হবে যেন সে আর তাদের বাড়িতে না আসে। এজন্য ঘটক স্বপন বলে, এটা কোন বড় বিষয় না। মাত্র ১০ হাজার টাকা দাও বিষয়টি সমাধান করে দিচ্ছি।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*