সংবাদ শিরোনামঃ

যুব সমাজের নৈতিক অবক্ষয় ঠেকাতে সুস্থধারার ইসলামী সংস্কৃতির বিকাশ ঘটাতে হবে

চন্দনাইশ কেশুয়া রাস্তার মাথাস্থ সাঈদা আর্কেডে হিজরি নববর্ষ ১৪৪০ বরণ করা হয়েছে। হামদ, নাতে রাসূল (দ), গজল, মাইজভান্ডারী গান, দেশাত্মবোধক সংগীত ও ইসলামী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশনার মাধ্যমে বিভিন্ন ইসলামী সংগঠনের শায়ের ও শিল্পীবৃন্দ হিজরি নববর্ষকে বরণ করে নেন। শোহাদায়ে কারবালা স্মরণে অনুষ্ঠিত হয় আলোচনা সভাও। গত ১৪ সেপ্টেম্বর শুক্রবার বিকালে কেশুয়া রাস্তার মাথা সাঈদা আর্কেডে বরকল-বরমা হিজরি নববর্ষ উদ্যাপন পরিষদের উদ্যোগে এবং আহ্বায়ক মাওলানা মুহাম্মদ গিয়াস উদ্দিন কাদেরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন আনজুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্টের সদস্য ও গাউসিয়া কমিটি বাংলাদেশ চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ কমর উদ্দিন সবুর। তিনি বলেন, হিজরি সনের সাথে মুসলমানদের অস্তিত্ব, ইতিহাস ও ঐতিহ্য জড়িয়ে আছে। মুসলমানদের জীবনধারা ও ইবাদত বন্দেগী হিজরি সন ও তারিখকে ঘিরে সাড়ে তেরশত বছর ধরে পালিত হয়ে আসছে। অথচ দু:খজনক যে আশুরা ও ঈদে মিলাদুন্নবী (দ) দিবসে  সরকারি ছুটি থাকলেও গুরুত্বের সাথে রাষ্ট্রীয় আয়োজনে ইসলামী দিবস সমূহ পালন করা হয় না। আলহাজ্ব কমর উদ্দিন সবুর বলেন, খ্রিষ্টীয় নববর্ষ ও বাংলা নববর্ষ পালনে আমরা আপত্তি করি না। যখন দেখি খ্রিষ্ট্রীয় নববর্ষ ও বাংলা নববর্ষের নামে ভিনদেশী অপসংস্কৃতি পালনের নামে দেশে উচ্ছৃঙ্খল তৎপরতা চলে তখন আমরা নিন্দা করারও ভাষা খুঁজে পাই না। ৮৫ভাগ মুসলমানের এদেশে ভিনদেশী বিকৃত অপসংস্কৃতি চলতে দেওয়া যায় না বলে তিনি উল্লেখ করেন। ১ মহররম সরকারি ছুটি ঘোষণা এবং ইসলামী দিবস সমূহ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পালনে বক্তারা সরকারের প্রতি জোরালো দাবি জানান।
হিজরি নববর্ষ উদ্যাপন পরিষদের সদস্য মুহাম্মদ ফোরকান হামিদ আজাদ ও মুহাম্মদ আব্দুল মুবিনের যৌথ সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন, পরিষদের সদস্য সচিব সমাজ সেবক আলহাজ্ব মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম, যুগ্ম আহ্বায়ক মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম ও সহ-সদস্য সচিব মুহাম্মদ শরফুদ্দীন নিজামী। অনুষ্ঠানে উদ্বোধক ছিলেন পশ্চিম চর বরমা গাউসিয়া তৈয়্যবিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসা ও হাজী মফজল রওশন হেফজ খানা-এতিমখানার প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি আলহাজ্ব মুহাম্মদ শের আলী খান। প্রধান আলোচক ছিলেন, দৈনিক পূর্বদেশের সহকারী সম্পাদক অধ্যক্ষ মুহাম্মদ আবু তালেব বেলাল। বিশেষ আলোচক ছিলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রসেনার কেন্দ্রীয় সিনিয়র সহ-সভাপতি জিএম শাহাদত হোসাইন মানিক। বিশেষ অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ ইসলামী ফ্রন্ট চন্দনাইশ উপজেলার সভাপতি প্রবীন আলেমেদ্বীন অধ্যক্ষ আল্লামা শাহ্ খলিলুর রহমান নিজামী (মজিআ), শেবন্দী-চর বরমা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি সমাজ সেবক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম, পরিষদের প্রধান উপদেষ্ঠা মুহাম্মদ মামুন উদ্দিন সিদ্দিকী, ইসলামী ফ্রন্ট নেতা মাওলানা কাজী আবুল কালাম আজাদ, আলহাজ্ব মুহাম্মদ আলী আক্কাস, মুহাম্মদ জসিম উদ্দিন চৌধুরী সাগর, মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুল মতিন, মুহাম্মদ মাজহার হেলাল, মুহাম্মদ আমিনুল ইসলাম রুবেল, কাজী মুহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, মাওলানা মুহাম্মদ আব্দুর রহমান আলকাদেরী।
প্রধান আলোচকের আলোচনায় অধ্যক্ষ মুহাম্মদ আবু তালেব বেলাল বলেন, বাঙালি মুসলমান হিসেবে বাঙালি নির্মল সংস্কৃতি বিসর্জন না দিয়েও আমরা হিজরি নববর্ষ পালন করতে পারি। অতি বাঙালি সাজতে গিয়ে আমরা যেন আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতিকে ভুলে না যাই। মুসলমান হিসেবে ইসলামী সংস্কৃতি ধারণ ও লালনই আমাদের প্রথম ও প্রধান করনীয়। তিনি তথ্য প্রযুক্তির অপব্যবহার রোধ ও বিজাতীয় নগ্ন সংস্কৃতির আগ্রাসনের লাগাম টেনে ধরে যুব সমাজের নৈতিক অবক্ষয় ঠেকাতে সুস্থধারার ইসলামী সংস্কৃতির বিকাশ ঘটানোর আহবান জানান। প্রাথমিক ও মাধ্যমিক স্তরের পাঠ্যসুস্তকে হিজরি সনের তাৎপর্য তুলেধরে প্রবন্ধ প্রকাশেরও দাবি জানান।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, মুহাম্মদ শহীদুল ইসলাম, মাওলানা মুহাম্মদ মাহবুবুল আলম, মুহাম্মদ ফোরকানুল আলম, জিএম আকবর খান, মাওলানা মুহাম্মদ মোরশেদুল আলম আনোয়ারী, মাওলানা মোক্তার আহমদ ইসলামাবাদী, মুহাম্মদ রফিকুল ইসলাম বাবুল, মুহাম্মদ ওয়াহিদুল আলম, মুহাম্মদ শাকিফুল ইসলাম, হাফেজ মুহাম্মদ সেকান্দর হোসাইন, মাওলানা মোস্তাফিজুর রহমান, মাওলানা কাজী মুহাম্মদ নূরুল আনোয়ার, মোহাম্মদ আবু তাহের, ওসমান শাহাদাৎ, মুহাম্মদ মাঈনুদ্দীন কিবরিয়া, কে.এ.এম রাশেদ, মুহাম্মদ কায়কোবাদ, মুহাম্মদ আবু সাঈদ আসিফ, ইমরান হোসেন তুষার, মুহাম্মদ সরওয়ার হোসেন, মুহাম্মদ রাফি, ফয়সাল হামিদ প্রমুখ। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন আল হাস্সান ইসলামী সাংস্কৃতিক ফোরামের শায়ের মাওলানা মুহাম্মদ ইমদাদুল ইসলাম কাদেরী, ইমাম শেরে বাংলা সাংস্কৃতিক ফোরামের মুহাম্মদ মঈনুদ্দীন কাদেরী, রজভীয়া নুরীয়া, তৈয়্যবিয়া ইসলামী সাংস্কৃতিক ফোরামের শিল্পীবৃন্দ।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*