প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চেয়ে সহকারী শিক্ষক মহাজোট এর সংবাদ সম্মেলন

প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের পরের গ্রেডে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল নির্ধারণে বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি হস্তক্ষেপ কামনা করে সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক মহাজোট। আজ ১২ সেপ্টেম্বর বুধবার সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির স্বাধীনতা হল মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। মহাজোটের সমন্বয়ক আতাউর রহমানের সভাপতিত্বে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ। লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, প্রধান শিক্ষকদের সাথে সহকারী শিক্ষকদের চরম বেতন বৈষম্য বিরাজমান। ১৯৭৩ সালে যেখানে একজন প্রধান শিক্ষকের সাথে সহকারী শিক্ষকের বেতন ব্যবধান ছিল মাত্র ১০ টাকা। ২০১৮ সালে এসে এই ব্যবধান হয়েছে ভাতাসহ প্রায় ৫ হাজার টাকা। বর্তমানে সহকারী শিক্ষকরা প্রধান শিক্ষকের চেয়ে ৩ গ্রেড নিচে বেতন পান। অথচ ১৯৭৩ সালে প্রাথমিক বিদ্যালয় গুলো জাতীয় করণের সময় উভয়েই একই গ্রেডে বেতন পেতেন। এই বৈষম্য নিয়ে সহকারী শিক্ষকা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে আসছে। গত ২৩ ডিসেম্বর সহকারী শিক্ষকরা ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরণ অনশনের ডাক দেন। ২৫  শে ডিসেম্বর প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী শিক্ষকদের দাবি যৌক্তিক হলে মেনে নিবেন এই প্রতিশ্রুতিতে শিক্ষকরা অনশন স্থগিত করেন। কিন্তু দীর্ঘ ৯ মাস পর হয়ে গেলেও বেতন বৈষম্য নিরসনের অগ্রগতি খুবই ধীর। উপরোন্ত প্রাথমিক গণশিক্ষা মন্ত্রী শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসনের বিষয়টি নির্বাচনের পরে সমাধান হবে বলে মন্তব্য করলে শিক্ষকরা আবারও আন্দোলনের হুমকি দেয়। শিক্ষক নেতারা বেতন বৈষম্য নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর সরাসরি হস্তক্ষেপ চান। এজন্য তারা প্রধানমন্ত্রীর সাথে দ্রুত সাক্ষাৎ চেয়েছেন। ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ এর মধ্যে প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ এবং বেতন বৈষম্য নিরসন না হলে ২০ শে সেপ্টম্বর থেকে ২৪ শে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষকরা প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ কামনায় গণস্বাক্ষর করবেন এবং ২৫ শে সেপ্টেম্বর গণস্বাক্ষরের কপিসহ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারক লিপি পেশ করবেন। এরপরও দাবি আদায় না হলে তারা মহা-সমাবেশসহ আরো কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দিবেন। তারা নির্বাচনের আগে বেতন বৈষম্য নিরসন চান। সংবাদ সম্মেলনে কর্মসূচি ঘোষণা করেন, সহকারী শিক্ষক সমাজের সভাপতি আনিসুর রহমান। সঞ্চালনা করেন, মহাজোট এর মুখপাত্র ও সহকারী শিক্ষক ফ্রন্ট এর সভাপতি ইউএস খালেদা আক্তার। সংবাদ সম্মেলনে আরো উপস্থিত ছিলেন, বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ প্রজন্ম লীগ এর কেন্দ্রীয় সভাপতি আসাদুজ্জামান দুর্জয়, বাংলাদেশ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি জাহিদুর রহমান বিশ্বাস, সহকারী শিক্ষক সমাজের সাধারণ সম্পাদক নুরে আলম সিদ্দিকী রবিউল, সহকারী শিক্ষক ফ্রন্ট এর সাধারণ সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন, সহকারী শিক্ষক সমিতির সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের জিলানী ও প্রমথেশ দত্ত, সহ-সভাপতি জাকির হোসেন, গাজী সালাউদ্দিন, জসিম উদ্দিন, আব্দুর রহিম ফেরদউস, মোহাম্মদ আব্দুল আলী, ফিরোজ আলম, মতিউর রহমান, ইলিয়াস মিয়া, আব্দুর রহমান, ময়জুল হক, শিশির কীর্তনিয়া, কাশেম বিদ্যুৎ প্রমুখ।

About Jisan Ali

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*