সংবাদ শিরোনামঃ

প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরী ……লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল….

বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল বলেছেন, প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা জরুরী। সম্প্রতি প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা বেড়েছে। ঘোষণা দিয়েও প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে ব্যর্থ হচ্ছে প্রশাসন। ফলে শিক্ষার্থীরা লেখাপড়ায় মনোযোগ কমিয়ে এখন বিভিন্ন জায়গায় প্রশ্ন খুঁজে যাচ্ছে। যা খুবই দুঃখ জনক। প্রশ্নপত্র ফাঁস ঠেকাতে না পারলে মেধাবীরা পিছনে পরবে এবং দুর্নীতি বেড়ে যাবে। কাজেই দ্রুত প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তিনি প্রশ্নপত্র ফাঁস বন্ধ করতে কতিপয় প্রস্তাব উত্থাপন করেন, যথা ১. পরীক্ষা কেন্দ্র কমিয়ে আনতে হবে, যাতে দক্ষ লোকজন দ্বারা সুষ্ঠুভাবে পরিক্ষা কার্যক্রম সম্পন্ন করা যায়। ২. পরীক্ষা শুরুর ১ ঘন্টা পূর্বে ইন্টারনেট মাধ্যমে প্রতিটি কেন্দ্রে বিশেষ নিরাপত্তাসহ প্রশ্ন পাঠানো হবে, যা স্থানীয়ভাবে ফটোকপি করে পরীক্ষার্থীদের যথা সময়ে সবরাহ করা হবে। ৩. পরীক্ষা কাজে যতদূর সম্ভব কম সংখ্যক লোকজন নিয়োজিত করতে হবে। কারণ বেশি মানুষ সংশ্লিষ্ট থাকলে প্রশ্নপত্র ফাঁসের সম্ভবনাও বেশি থাকে। ৪. প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে বিটিআরসি ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরো সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে।
জাতীয় গণতান্ত্রিক লীগ ও বাংলাদেশ বাম ফ্রন্ট এর যৌথ উদ্যোগে ১২ ফেব্রুয়ারি সকালে ঢাকার বাংলাদেশ শিশু কল্যাণ পরিষদ মিলনায়তনে আয়োজিত “প্রশ্নপত্র ফাঁস ও প্রতিকার” শীর্ষক আলেলাচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। বাংলাদেশ বাম ফ্রন্টের চেয়ারম্যান ডা. এম এ সামাদ এর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন, জাতীয় পার্টি (জেপি) মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম, জয় বাংলা মঞ্চের সভাপতি মাওলানা মুফতি মাসুম বিল্লাহ নাফিয়ী, বাংলাদেশ গণতান্ত্রিক মুক্তি আন্দোলনের চেয়ারম্যান আশরাফ আলী হাওলাদার, জাতিয় পার্টির সহ-সম্পাদক তালুকদার মো. নাসির উদ্দিন জুয়েল ও ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগ নেতা আ.স.ম মোস্তফা কামাল।

About Asgor Ali Manik

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*